বাংলাদেশ চা গবেষণা ইনস্টিটিউট গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৭ জানুয়ারি ২০১৫

এনএআরএস

জাতীয় কৃষি গবেষণা সিস্টেম এর সংক্ষিপ্ত বিবরন

বাংলদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল আইন, ২০১২ এর আওতায় বিএআরসি-কে সর্বোচ্চ সংস্থা এবং ১২টি কৃষি গবেষণা ইনষ্টিটিউট-কে বিএআরসির সংবিধানিক ইউনিট হিসাবে গন্য করে জাতীয় কৃষি গবেষণা সিস্টেম (নার্স) পূনর্গঠিত হয়। কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, এনজিও এবং বেসরকারী খাত নার্স এর অংঙ্গ না হলেও গবেষণা সহযোগীতার সংগে যুক্ত। বিএআরসি সহ ১৩টি গবেষণা সংস্থার মধ্যে ৬টি স্বায়ত্বশাসিত এবং কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীন, বাকী সংস্থাগুলো অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের অধীন এবং ৩টি সংস্থা বাংলাদেশ বন গবেষণা ইনষ্টিটিউট, মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনষ্টিটিউট ও বাংলাদেশ তুলা উন্নয়ন বোর্ড সরকারী সংস্থা।

বিএআরসি – কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীন জাতীয় কৃষি গবেষণা সমন্বয়কারী প্রতিষ্ঠান

তফসিল ক

প্রশাসনিক অবস্থা

বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি)
ওয়েবসাইট: www.bari.gov.bd


কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীন স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান

বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি)
ওয়েবসাইট: www.brri.gov.bd

বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিজেআরআই)
ওয়েবসাইট: www.bjri.gov.bd

বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা)
ওয়েবসাইট: www.bina.gov.bd

বাংলাদেশ ইক্ষু গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএসআরআই)
ওয়েবসাইট: www.bsri.gov.bd

তফসিল খ

 

মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউট (এসআরডিআই)
ওয়েবসাইট: www.srdi.gov.bd

কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীন সরকারী সংস্থা

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট (এফআরআই)
ওয়েবসাইট: www.fri.gov.bd

মৎস্য ও প্রানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীন স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান

বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএলআরআই)
ওয়েবসাইট: www.blri.gov.bd

বাংলাদেশ বন গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএফআরআই)
ওয়েবসাইট: www.bfri.gov.bd

পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের অধীন সরকারী সংস্থা

বাংলাদেশ চা গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিটিআরআই)
ওয়েবসাইট: www.btri.gov.bd

বাংলাদেশ টি বোর্ড, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান

বাংলাদেশ রেশম গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট (বিএসআরটিআই)
ওয়েবসাইট: www.bsrti.gov.bd

পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয়ের অধীন স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান

বাংলাদেশ তুলা উন্নয়ন বোর্ড (সিডিবি)
ওয়েবসাইট:www.cdb.gov.bd

কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীন সরকারী সংস্থা

 

বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (ওয়েবসাইট: www.bari.gov.bd)
বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট ১৯৭৬ সালে প্রতিষ্ঠিত। সর্ববৃহৎ এই গবেষণা প্রতিষ্ঠানে রয়েছে ১৬টি বিভাগ এবং ৭ টি গবেষণা কেন্দ্র, ৬ টি আঞ্চলিক কেন্দ্র ও ৩০ টি উপকেন্দ্র। দু’শর বেশি ফসল ও বিভিন্ন শস্যের ৩৭০টি উন্নত জাত এবং ৪২২ ধরনের প্রযুক্তি উদ্ভাবন করতে সক্ষম হয়েছে। গবেষণার আওতায় শস্যের মধ্যে গম, ভূট্টা, চীনা, কাউন, ডালশস্য, তেলফসল, কন্দাল জাতীয় ফসল, ফল, ফুল, সবজি ও মসলা জাতীয় ফসল অন্যতম। দেশে গম উৎপাদন ঘাটতি কমানোর লক্ষে প্রায়োগিক গবেষণা অব্যহত রয়েছে এবং এযাবৎ বিভিন্ন অঞ্চল ভেদে ২৮টি জাত উদ্ভাবন করা হয়েছে। উদ্ভিজ্জ প্রোটিনের প্রধান উৎস ডাল। কিন্তু দেশে ডালের প্রচুর ঘাটতি রয়েছে। ডালের উৎপাদন বাড়াতে ৭টি মসুর, ৯টি ছোলা, ৬টি মুগ, ২টি খেসারির উচ্চফলনশীল জাত উদ্ভাবন করা হয়েছে। দেশে চাহিদার তুলনায় মাত্র এক-তৃতীয়াংশ তেল উৎপাদন হয়। ইনস্টিটিউট বহুমুখী তৈলবীজ গবেষণা ও অধিক উৎপাদন বাড়ানোর লক্ষে ৩৩ টি জাত উদ্ভাবন করেছে। দেশ আলু উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ। এজন্য ইনষ্টিটিউটের উলে¬খযোগ্য ভূমিকা রয়েছে। উচ্চ ফলনশীল আলুর জাত উদ্ভাবন ও উন্নত বীজ উৎপাদনের ফলে হেক্টর প্রতি গড় উৎপাদন ৩০-৩৫ টন। বছর জুড়ে বৈচিত্র্যময় সবজির উৎপাদন ও সরবরাহ বাড়ানোর লক্ষে ৮৪ টি সবজির জাত উদ্ভাবন করা হয়েছে। গ্রীষ্মকালীন টমেটোর জাত উদ্ভাবনের ফলে কৃষকরা অধিক লাভবান হচ্ছে। ইনষ্টিটিউট আমের ওপর গবেষণা করে সুস্বাদু হাইব্রিড আমের জাত উদ্ভাবন করেছে। মসলা ঘাটতি কমাতে প্রায়োগিক গবেষণা জোরদার করে আদা, হলুদ, রসুন, পিঁয়াজ ইত্যাদির প্রায় ২০টি জাত উদ্ভাবনের ফলে উৎপাদন অনেক বেড়েছে। ফুল গবেষণার মাধ্যমে রজনীগন্ধা, গ্লাডিওলাস, অর্কিড, জারবেরা, এ্যান্থোরিয়াম-এর প্রায় ১৫ টি জাত উদ্ভাবন করা হয়েছে। ভবিষ্যতে ফুল একটি রফতানীযোগ্য পণ্য হিসাবে প্রচুর সম্ভাবনা বিদ্যমান।

 

বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ওয়েবসাইট: www.brri.gov.bd)
দেশের প্রধান খাদ্য ধানের ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণ, উচ্চ ফলনশীল ধানের জাত উদ্ভাবন ও টেকসই প্রযুক্তি উদ্ভাবনের লক্ষে ১৯৭০ সালে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনষ্টিটিউট প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে ১৮টি গবেষণা বিভাগসহ ৯টি আঞ্চলিক কেন্দ্র রয়েছে। এ যাবৎ বিভিন্ন মৌসুমের উপযোগী চারটি হাই ব্রিড ধান সহ ৬৫টি উচ্চ ফলনশীল ধানের জাত উদ্ভাবন করেছে। বর্তমানে ব্যপক জনপ্রিয় ব্রি ধান ১১, ২৮,২৯ জাত দেশের প্রায় ৮০ শতাংশ জমিতে কৃষকরা চাষাবাদ করছেন। উন্নত চাষাবাদ প্রযুক্তি উদ্ভাবনের ফলে দেশের খাদ্য নিরাপত্তা অর্জন ও দারিদ্র বিমোচনে অবদান রাখছে। মাটি, পানি, সার ব্যবস্থাপনা, পোকা মাকড় ও রোগবালাই দমন, কৃষি যন্ত্রপাতি ও ধানভিত্তিক খামার বিন্যাস প্রভৃতি বিষয়ের ওপর শতাধিক প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছে। পরিবেশ বান্ধব প্রযুক্তি উন্নয়নের ফলে দক্ষিণাঞ্চলের জোয়ারভাটা ও লবণাক্ত সহিষ্ণু, মঙ্গা ও হাওর এলাকার জন্য আগাম জাতসহ অন্যান্য ধানের জাত উদ্ভাবন করা হয়েছে। ধান ভিত্তিক শস্যবিন্যাস, রোগব্যাধি, ক্ষতিকর পোকা সনাক্ত ও দমন ব্যবস্থাপনা এবং জীববৈচিত্র রক্ষা করা হচ্ছে। আট হাজারের বেশি ধানের জার্মপ্লাজম সংগ্রহ করে জিন ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। দেশে কৃষি শ্রমিকের সংখ্যা ক্রমাগত কমে যাচ্ছে। সে কারণে খাদ্য উৎপাদন কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌছনোর কৌশল মোকাবেলায় কৃষকের কাজে সহায়তার লক্ষ্যে ধানের চারা বপন, ধান কাটা ও মাড়াই যন্ত্র কৃষকদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। ইউরিয়া সার ব্যবস্থাপনায় লিফ কালার চার্ট ব্যবহার প্রযুক্তি কৃষক পর্যায়ে সম্প্রসারণ করা হয়েছে। ইউরিয়া সারের অপচয় রোধ করবার লক্ষ্যে গুটি ইউরিয়া ব্যবহার উৎসাহিত করা হচ্ছে এবং যন্ত্রের সাহায্যে গুটি ইউরিয়া জমিতে প্রয়োগ করা হচ্ছে। মাঠ পর্যায়ে যন্ত্রপাতি ও নতুন প্রযুক্তি ব্যবহারে কৃষকদের প্রশিক্ষণ দেয়ার ফলে উৎপাদন খরচ কমানো সম্ভব হয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুপ প্রভাব, লোকসংখ্যার বাড়তি চাপ এবং কৃষি জমির পরিমান সংকুচিত হওয়া সত্ত্বেও ধানের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে এবং বর্তমানে ধান উৎপাদনে দেশ স্বয়ংসম্পূর্ণ। বিগত ২০১১-২০১২ অর্থ বছরে ধানের উৎপাদন ছিল ৩ কোটি ৫৭ লাখ টন।

 

বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনস্টিটিউট (ওয়েবসাইট: www.bjri.gov.bd)
বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইনষ্টিটিউট, পাট উৎপাদন সম্পর্কিত গবেষণা এবং পাটের বহুমুখী পণ্য উদ্ভাবন ও উন্নয়ন-এর ওপর গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করে। ইনষ্টিটিউট কর্তৃক উদ্ভাবিত ৪০টি উচ্চ ফলনশীল জাতের মধ্যে ১৬টি জাত মাঠ পর্যায়ে ব্যাপকভাবে চাষ করা হচ্ছে। এসব জাত ব্যবহার করে পাটের গড় উৎপাদন বেড়েছে এবং কৃষকরাও অধিক লাভবান হচ্ছেন। পাট দেশের অন্যতম অর্থকরি ফসল এবং বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের অন্যতম খাত। বিশ্বজুড়ে পরিবেশ বান্ধব-প্রাকৃতিক আঁশের পণ্যের ব্যবহ